সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

গৃহসজ্জা ফেলনা যে জিনিসগুলো ফেলবেন না কখনই!

বিশ্বাস করুন এই ফেলনা জিনিসকে একটু সময় নিয়ে অসাধারণ জিনিসে পরিনত করতে পারেন আপনি! ছোট্ট সোনামনির খেলনা, কলমদানি, দেয়ালসজ্জা কত কিছুই না বানাতে পারেন এই জিনিস দিয়ে।

ঘরের ব্যবহৃত জিনিসগুলো যখন ব্যবহার অযোগ্য হয়ে যায় তখন সেগুলো ষ্টোর রুমে ফেলে রাখি আমরা। অনেকে আবার ঘরের ঝামেলা কমাতে ডাস্টবিনেই ফেলে দেন সেসব জিনিস। ঘরকে পরিষ্কার রাখতে ব্যবহার অযোগ্য ফেলনা জিনিসগুলো ফেলা দেয়াই উত্তম। তবে জানেন কি এরকম বেশ কিছু ফেলনা জিনিসই আপনার ঘরের সৌন্দর্য কমানোর বদলে উল্টো বাড়িয়ে দিতে পারে! সত্যিই বলছি, এখন থেকে বেশ কিছু ফেলনা জিনিসকে রেখে দিন যত্ন করে। যেগুলো পরবর্তীতে কাজে লাগাতে পারবেন অনায়াসে।

১। খোঁপার কাটা বা চুলের ক্লিপঃ

খোঁপার কাটা বা ক্লিপ পুরোনো হয়ে গেলেও ফেলবেন না। তার পেঁচিয়ে রাখতে, ট্যাপের শেষ অংশ সহজে খুঁজে পেতে এসব কাটা বা ক্লিপ ব্যবহার করুন। আর আপনার পার্স বা ব্যাগ সাজাতেও কিন্তু ব্যবহার করতে পারেন এ জিনিসগুলো। ভিন্নরকম নকশা তৈরি হবে ব্যাগের গায়ে।

২। ভেঙে যাওয়া মোম রঙঃ

ভেঙে যাওয়া মোম রঙগুলোকে একটু তাপে গলিয়ে নিন। এবার ঔষধ বা চকলেটের ফেলনা ধাঁচে ঢেলে ইচ্ছেমত শেপ দিন। সংরক্ষণ করুন। ড্রয়িং রুমের শোপিস কর্নার সাজাতে কিংবা কোন উপহার তৈরিতে অনায়াসে ব্যবহার করতে পারবেন সেগুলো।

৩। রাবার ব্যান্ডঃ

রাবার ব্যান্ড ছিড়ে গেলেও রেখে দিন। বাইরে যাচ্ছেন, ব্যাগে জায়গা হচ্ছেনা? একটা বালিশের কভারে আপনার পোশাক ঢুকিয়ে মুখটা রাবার ব্যান্ড দিয়ে পেঁচিয়ে নিন। জায়গাও কম লাগবে, অগোছালোও হবেনা।

৪। টয়লেট পেপার রোলঃ

বিশ্বাস করুন এই ফেলনা জিনিসকে একটু সময় নিয়ে অসাধারণ জিনিসে পরিনত করতে পারেন আপনি! ছোট্ট সোনামনির খেলনা, কলমদানি, দেয়ালসজ্জা কত কিছুই না বানাতে পারেন এই জিনিস দিয়ে। তাই এই জিনিস ফেলা দেয়াই বোকামি।

৫। বইঃ                            

পুরোনো বই ফেলে না দিয়ে সাজিয়ে রাখুন। মনে একটা প্রশান্তি পাবেন। আর একদম বেশি পুরনো হলে মোটা কভারগুলো সংগ্রহ করে রাখুন। ওগুলো দিয়ে জুয়েলারী বক্স, ফটো ফ্রেম বানাতে পারবেন সহজেই।

৬। বোতলঃ

পানি বা ঔষধের প্লাস্টিকের বোতলগুলো ফেলে না দিয়ে রেখে দিন। পোষ্টার কালার বা নেলপালিশ দিয়ে ডিজাইন করে সাজিয়ে রাখতে পারেন সেগুলোকে যে কোন স্থানে।

৭। খাবারের বক্সঃ

বাইরে থেকে আনা খাবারের বক্সগুলো ফেলে না দিয়ে পরিষ্কার করে রাখুন। ছোট খাটো প্রয়োজনীয় জিনিস গুছিয়ে রাখতে পারবেন সহজে। বিস্কুটের বক্সগুলো রাখতে পারেন অন্যান্য শুকনো খাবার।

৮। বোতামঃ

শার্ট ব্যবহার অযোগ্য হয়ে গেলে বোতামগুলো রেখে দিন। দরকারে ব্যবহার করতে পারবেন কিংবা সহজেই কার্ড বা গয়না বানিয়ে ফেলতে পারবেন।

৯। লেবুর খোসাঃ

লেবুর খাওয়ার পর লেবুর খোসা গুলোকে ফেলে না দিয়ে রেখে দিন। তেল চর্বিযুক্ত থালা বাসন পরিষ্কার করতে, ঘরের বাতাসকে সতেজ করতে লেবুর খোসার জুড়ি নেই।

১০। কুমড়ার বীজঃ

শুনতে হাস্যকর হলেও কুমড়ার বীজগুলো আসলেই ফেলনা নয়। বীজ গুলো পরিষ্কার করে রোদে শুকিয়ে নিন। অল্প একটু তেলে, একটু লবন দিয়ে ভেজে খেয়ে দেখুন। দারুন মজা পাবেন কিন্তু।

ফেলনা অনেককিছুই আসলে ফেলনা নয়। একটু সময় আর বুদ্ধির সমন্বয় ঘটালে ফেলনা জিনিসই হয়ে যেতে পারে অসাধারণ কিছু। 


এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।